গাইবান্ধার শিশুকে ঢাকায় নিয়ে নির্যাতন, এলাকাবাসীর বিক্ষোভ

গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে শিশু গৃহকর্মী জেলাল মিয়ার (১১) ওপর নির্মম নির্যাতনের প্রতিবাদে ও দোষীদের শাস্তির দাবিতে আজ বৃহস্পতিবার, ৬ মে ঢাকা-রংপুর মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেছেন এলাকাবাসী। পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে বিচারের আশ্বাস দিলে প্রায় ২ ঘণ্টা পর বিকেলে বিক্ষোভ কর্মসূচি তুলে নেওয়া হয়।

স্থানীয়রা জানায়, গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার কোমরপুর চামাথার মৃত সিরাজুল ইসলামের ছেলে জেলাল মিয়াকে গৃহকর্মী হিসেবে পলাশবাড়ী উপজেলার বরিশাল ইউনিয়নের ভবানীপুর গ্রামের মফিজুল হকের ছেলে রিয়াদ মিয়া ঢাকার ধানমন্ডির বাসায় নিয়ে যান। ২ বছর আগে নিয়ে গেলেও জেলালকে আর তার বাবা মা ও স্বজনদের সঙ্গে সাক্ষাত করতে দেওয়া হয়নি। গত রাতে গুরুতর অসুস্থ জেলালকে কোমরপুর বাড়িতে এনে স্বজনের হাতে বুঝিয়ে দিতে গেলে জেলালের শরীরিক অবস্থা দেখে তার মা ও স্বজনরা কান্নায় ভেঙে পড়েন। এ সময় জীর্ণশীর্ণ হাল অবস্থার শিশুটিকে দেখতে এলাকাবাসী সেখানে ভিড় করেন।  জেলাল তার শরীরের ক্ষত চিহ্ন দেখিয়ে তার ওপর নির্মম নির্যাতনের বর্ণনা দেয়। তবে ঢাকা থেকে আসা গৃহকর্তার  লোক পরিস্থিতি দেখে সটকে পড়ে।

নির্যাতনের ঘটনা শুনে এলাকাবাসী ক্ষোভে ফেটে পরে। তারা বৃহস্পতিবার বেলা দেড়টার দিকে ঢাকা-রংপুর মহাসড়ক অবরোধ করে দোষী ব্যক্তির শাস্তি দাবি করতে থাকে। খবর পেয়ে গোবিন্দগঞ্জ থানা পুলিশ ও গোবিন্দগঞ্জ হাইওয়ে থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে আলোচনা ও আশ্বাসের প্রেক্ষিতে প্রায় ২ ঘণ্টা পর অবরোধ তুলে নেওয়া হয়। অবরোধের কারণে সড়কের দুইপাশে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়। এ ব্যাপারে অভিযুক্তদের কারও বক্তব্য পাওয়া যায়নি। রিয়াদ মিয়ার বাড়ি থেকে কেউ সাড়া দেয়নি।

গোবিন্দগঞ্জ থানার ওসি একেএম মেহেদী হাসান জানান, অভিযোগ অনুযায়ী ঘটনাটি ঢাকার ধানমন্ডি এলাকায় ঘটেছে। তারা সরাসরি সংশ্লিষ্ট থানায় অভিযোগ দিতে পারে অথবা গোবিন্দগঞ্জে লিখিত অভিযোগ দিলে সেটি যাচাই-বাছাই করে ওই থানায় পাঠানোর ব্যবস্থা করা হবে।

তিনি আরো জানান, শিশুটিকে অসুস্থ অবস্থায় দেখা গেছে এবং তাকে স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এবি/রাতদিন

সাথে থাকুন...
মতামত দিন