https://ratdin.news
শেকড়ের খবর সবার আগে...

লালমনিরহাটে চালকলে বিষ দিয়ে অর্ধশতাধিক পাখি হত্যা

লালমনিরহাট পৌর শহরের একটি চালকলে বিষ প্রয়োগে বিভিন্ন প্রজাতির অর্ধশতাধিক পাখি হত্যা করা হয়েছে। বিষয়টি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে উঠে এলে ঘটনাটি ভাইরাল হয়। খবর পেয়ে জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে অভিযোগোর সত্যতা পেয়েছেন।

আজ শনিবার, ১৪ সেপ্টেম্বর এ ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, লালমনিরহাট পৌরসভা এলাকার নয়ারহাট এলাকার ‘সিটি রাইচ মিলস লিমিটেড’ নামের চলকলটিতে পাখি নিধনের এ ঘটনা ঘটে। এর মালিক মুক্তিযোদ্বা আবুল কাশেম। তবে তিনি পাঁচ বছরের জন্য চালকলটি জনৈক মানিক মিয়ার কাছে ভাড়া দিয়েছেন। মানিক মিয়া চাতালে পাখি আসা বন্ধ করতে গত দুদিন থেকে বিষ প্রয়োগ করে আসছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

সংশ্লিষ্টরা জানান, রাতে চাতালে রাখা ধান যাতে বৃষ্টিতে ভিজে না যায় সেজন্য পলিথিন দিয়ে ঢেকে রাখা হয়। সকালের দিকে শ্রমিকরা কাজে আসার আগে পাখিরা সেই পলিথিন ছিড়ে ধান খাচ্ছিল। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে চালকলের ভাড়াটে মানিক মিয়া সেখানে এক ধরণের বিষ প্রয়োগ শুরু করেন। এতে সেখানে শনিবার দুপুর পর্যন্ত ২৯টি বাবুই, ২৪ টি ঘুঘু, ২টি শালিক, দুটি কবুতর ও একটি কোয়েল মারা যায়।

পরে মাহাবুব হাসান মনু নামের এক যুবক মৃত পাখিগুলোর ছবি তুলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট করেন। ফলে দ্রæত তা ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ে।

ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা যায়, ওই চালকলের সামনে পাখিগুলো জড়ো করে রেখে সেখানে ‘পাখি হত্যার বিচার চাই’ লেখা প্ল্যালার্ড রাখা হয়েছে এলাকার লোকজনের পক্ষ থেকে।

চাতাল শ্রমিক রবিউল ও আশরাফুল জানান, সকালে কাজ করতে এসে দেখি চাতালে প্রায় ৩০টি বিভিন্ন পাখি মরে পড়ে আছে। দুপুর হতে হতে মৃত্যুর সংখ্যা বাড়তে থাকে। এ খবর চাতালের ভাড়াটে জানালেও তিনি আসেননি।

আরেক শ্রমিক আব্দুস সালাম বলেন, ‘ঠোঁট দিয়ে পলিথিন ফুটো করা থামাতে চাতাল মালিক সেখানে বিষাক্ত কিছু দিয়েছিল। তাই পাখিগুলো মারা গেছে।’

চাতালের পাশ^বর্তী গৃহবধু কোহিনুর বলেন, ‘পাষন্ড মানিকের কারণে আমার দুটি মক্ষীজাতের কবুতর মারা গেছে। মানুষ হয়ে এভাবে পাখি হত্যা করতে পারে কেউই পারেন না। আমরা এ হত্যার বিচার চাই।’

খবর পেয়ে লালমনিরহাটের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক আহসাব হাবিব ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

লালমনিরহাট সদর উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডা. মকবুল হোসেন বলেন, ‘পাখি মৃত্যুর সঠিক কারণ জানতে আগামীকাল (রবিবার) নমুনা পাঠানো হবে ঢাকায়। তবে প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে বিষক্রিয়ায় পাখিগুলো মারা গেছে।’

অভিযুক্ত চালকলের ভাড়াটে মানিক মিয়াকে সেখানে পাওয়া যায়নি। তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোনটিও বন্ধ পাওয়া যায়।

লালমনিরহাটের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক আহসাব হাবিব জানান, অভিযুক্তের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এইচএ/রাতদিন

ভালো লাগলে লাইক দিন, শেয়ার করুন।

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়েছে