আদিতমারীতে সেলুনে শিশু ধর্ষণ, গুলিবিদ্ধ অবস্থায় নরসুন্দর গ্রেফতার

লালমনিরহাটের আদিতমারী উপজেলার খোলাহাটি সেতুরবাজার এলাকার সেই নরসুন্দর ছকিমুদ্দিন গত কয়েকদিন ধরে আত্নগোপনে ছিলেন। আর বুধবার, ২৭ মার্চ গ্রেফতার এড়াতে সীমান্ত পেরিয়ে ভারত পালানোর চেষ্টা করছিলেন। তবে শেষ রক্ষা হয়নি। পুলিশের গুলিতে আহত অবস্থায় শেষ পর্যন্ত ধরা পড়েছে। বর্তমানে সে লালমনিরহাট সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

পুলিশ জানায়, গত ১৭ মার্চ বাড়ির পাশে থাকা ছকিমুদ্দিনের সেলুনে চুল কাটাতে যায় পাঁচ বছর বয়সী এক শিশু। এসময় সেতুরবাজারে লোকজন তেমন একটা ছিল না। এই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে নিজের দোকান বন্ধ করে সেখানেই ব্র্যাক পরিচালিত শিশু শ্রেণীর ওই শিক্ষার্থীকে ধর্ষণ করে ওই নরসুন্দর। পরে সে দোকান থেকে পালিয়ে যায়। পরে শিশুটিকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এ ঘটনার পরদিন শিশুটির বাবা বাদি হয়ে আদিতমারী থানায় মামলা করেন।

জানা গেছে, মামলা দায়েরের পর বারবার জায়গা বদল করে আত্নগোপনে ছিল ছকিমুদ্দিন। এই অবস্থায় বুধবার রাতে আদিতমারীর সীমান্তবর্তি দূর্গাপুর বাজারে তার অবস্থানের খবর পায় পুলিশ। পরে পুলিশের একটি দল সেখানে গিয়ে তাকে ঘিরে ফেলে। এসময় পুলিশের ওপর হামলা চালিয়ে সে পালানোর চেষ্টা করলে পুলিশ গুলি চালায়। এতে বাম পায়ে গুলিবিদ্ধ হয় ছকিমুদ্দি। পরে তাকে সেখান থেকে গ্রেফতার করে সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

আদিতমারী থানার ওসি মাসুদ রানা এ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, চিকিৎসা শেষে তাকে আদালতে পাঠানো হবে।

এইচএ/রাতদিন

লাইক দিয়ে সাথে থাকুন