উপজেলা নির্বাচন : রংপুরে সম্ভাব্য প্রার্থীরা মাঠে

ফেব্রুয়ারির প্রথম সপ্তাহে তফসিল ঘোষনা হতে পারে। নির্বাচন কমিশনের এমন ইঙ্গিতের পর উত্তরের জেলা রংপুরে শুরু হয়েছে উপজেলা নির্বাচনের গুঞ্জন।

জেলার আট উপজেলার গ্রামের হাট-বাজার থেকে উপজেলা সদর সবখানেই চলছে নির্বাচনী আলাপ।

আবার সম্ভাব্য প্রার্থীরাও বসে নেই। তারা নানা ভাবে জানান দিচ্ছেন নিজের প্রার্থী হওয়ার কথা। অনেকেই দোয়া চাচ্ছেন ফেসবুকে।

জেলার আট উপজেলায় বেশকিছু প্রার্থীর নাম শোনা যাচ্ছে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান পদের সম্ভাব্য প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে। তবে এর মধ্যে মিঠাপুকুর ‘উপজেলা পরিষদের প্রথম সভা’ অনুষ্ঠিত না হওয়ায় সেখানে এবার ভোট না হওয়ার ইঙ্গিত পাওয়া গেছে নির্বাচন কমিশন সূত্র থেকে।

জানা গেছে, রংপুরের সম্ভাব্য প্রার্থীরা ভোটারদের সাথে যোগাযোগ রাখার পাশাপাশি দলীয় প্রতীক পেতে জেলার নেতাদের সাথেও সম্পর্ক রাখছেন। মনোনয়ন পেতে চালাচ্ছেন লবিং।

সম্ভাব্য প্রার্থীদের কেউ কেউ ইতোমধ্যে মাঠ পর্যায়ে টানিয়েছেন ব্যানার- ফেস্টুন।

রংপুর সদর : এ উপজেলায় এবার চেয়ারম্যান পদে আওয়ামীলীগ থেকে শোনা যাচ্ছে বর্তমান উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও জেলা যুব মহিলা লীগের সাধারণ সম্পাদক নাসিমা জামান ববি, মহানগর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ডা. দেলোয়ার হোসেন, জেলা আওয়ামী লীগের কৃষিবিষয়ক সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির বকসী ও চন্দনপাট ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আমিনুর রহমানের নাম।

অপরদিকে বিএনপির প্রার্থী হিসেবে উঠে আসছে জেলা বিএনপির সহসভাপতি মিজানুর রহমান রন্টু, দপ্তর সম্পাদক হারুন অর রশিদ হারুন ও সদর উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট শফি কামালের নাম।

তাদের বাইরে জেলা জাতীয় পার্টির সাংগঠনিক সম্পাদক মাসুদ নবী মুন্না ও সদর উপজেলা সভাপতি রুহুল আমিন লিটন এবং মমিনপুর ইউপি চেয়ারম্যান সুলতানা আক্তার কল্পনার নাম শোনা যাচ্ছে সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে।

গঙ্গাচড়া : উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে আলোচনায় আছেন আওয়ামী লীগ নেতা আসাদুজ্জামান বাবলু, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি রুহুল আমিন, উপজেলা বিএনপির সভাপতি ওয়াহেদুজ্জামান মাবু এবং সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মোকাররম হোসেন সুজন আছে সম্ভাব্য উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের তালিকায়।

বদরগঞ্জ :  এ উপজেলায় শোনা যাচ্ছে বর্তমান চেয়ারম্যান ফজলে রাব্বী সুইট, বিএনপি নেতা সাখাওয়াত হোসেন শাহান ও উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান সাইদুল ইসলামের নাম।

তারাগঞ্জ : তারাগঞ্জ উপজেলায় বর্তমান চেয়ারম্যান আনিছুর রহমান লিটন, ইউপি চেয়ারম্যান কুমারেশ রায় ও মাওলানা আশরাফ আলীর নাম শোনা যাচ্ছে সম্ভাব্য প্রার্থী হিসাবে।

কাউনিয়া : আওয়ামী লীগ নেতা আনোয়ারুল ইসলাম মায়া, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুর রাজ্জাক, বর্তমান চেয়ারম্যান ও জেলা বিএনপির কোষাধ্যক্ষ মাহফুজার রহমান মিঠু, হারাগাছ পৌর বিএনপির সভাপতি মোনায়েম হোসেন ফারুক, কমিউনিস্ট পার্টির উপজেলা সভাপতি গোবিন্দ দাস, ভূমিহীন আন্দোলনের কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এম হক আকরাম উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করতে পারেন বলে আভাস পাওয়া যাচ্ছে।

পীরগাছা : উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের আব্দুল্লাহ আল মামুন মিলন, আমিনুল ইসলাম রাঙ্গা ও জাতীয় পার্টির আবু নাসের শাহ মো. মাহবুবার রহমান নির্বাচনী মাঠে আলোচনায় রয়েছেন।

মিঠাপুকুর : উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন সরকার, সাবেক ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান আব্দুল লতিফ খান, জাতীয় পার্টির আব্দুল হালিম মণ্ডল, বাবর আলী, মেজবাহুল ইসলাম মিলন, আখতার হোসেন, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান হারুন অর রশিদ ও শাহ হাফিজুর রহমান এ উপজেলা থেকে নির্বাচন করতে পারেন বলে জানা গেছে।

পীরগঞ্জ : এ উপজেলায় বর্তমান চেয়ারম্যান নুর মোহাম্মদ মণ্ডল, জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহসভাপতি ছায়াদত হোসেন বকুল, সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান সফিউর রহমান মণ্ডল মিলন ও বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান মোনায়েম সরকার মানু রয়েছেন সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থীর তালিকায়।

এইচএ/২১.০১.১৯

লাইক দিয়ে সাথে থাকুন