বিয়ের দাবিতে কিশোরের বাড়িতে ৩৫ বছরের নারীর অনশন!

পঞ্চগড়ে ৩৫ বছর বয়সী এক নারী বিয়ের দাবিতে ১৭ বছর বয়সী এক কিশোরের বাড়িতে গত চার দিন ধরে অবস্থান করছে। ঠিক এমন অভিযোগ করে পঞ্চগড় প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেছে কিশোরের বাবা।

শনিবার, ২৩ ফেব্রsয়ারি দুপুরে সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য রাখেন কিশোরটির বাবা জয়নুল ইসলাম।

তিনি জানান, পঞ্চগড় সদর উপজেলার কামাত কাজলদীঘি ইউনিয়নের ফুলপাড়া গ্রামে তিনি একটি জমি লিজ নিয়ে টমেটো চাষ করছেন। তা দেখভাল করতে তার ছেলে প্রতিদিন সেখানে যাতায়াত করতো। এরই এক পর্যায়ে তালাকপ্রাপ্ত ওই নারীর সাথে পরিচয় হয় কিশোরের।

ক্ষেতে যাতায়াতের মাঝে গত ১৬ ফেব্রæয়ারি বিকেলে টমেটো ক্ষেত ধেকে স্থানীয় কয়েক জন যুবককে দিয়ে তার ছেলেকে ওই নারী নিজের বাড়িতে তুলে নিয়ে গিয়ে সেখানে দুই দিন আটককে রাখে বলে অভিযোগ করেন জয়নুল।

পরে এক শালিস বৈঠকে ছেলের পক্ষ থেকে ওই নারীকে ৫০ হাজার টাকা প্রদানের সিদ্ধান্ত হয়। জয়নুল সেই টাকা শালিশকারীদের হাতে তুলেও দেন। ফলে ছেলেকে ছেড়ে দেয়া হয়। কিন্তু শালিসকারীরা ওই নারীকে সেই টাকা না দিয়ে পুনরায় টাকা আদায়ের জন্য ওই নারীকে জয়নুলের বাড়িতে পাঠানো হয় বলে সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করা হয়। সেখানেই ওই নারী গত চারদিন ধরে বিয়ের দাবিতে অবস্থান করছেন।

ওই কিশোরের খালাতো ভাই নুরুজ্জামান নুরু সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করেন, বিষয়টি পঞ্চগড় সদর থানা পুলিশকে জানিয়ে সহযোগিতা চাইলেও পুলিশ কোনো সহযোগিতাই করছে না।

পঞ্চগড় সদর থানার ওসি আবু আক্কাছ আহমদ বলেন, ‘এ ঘটনায় আমরা কোনো অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

এবি/রাতদিন

লাইক দিয়ে সাথে থাকুন