রংপুরে গৃহবধুর মৃত্যু: পরিবার বলছে হত্যা, পুলিশের দাবি আত্নহত্যা

রংপুর নগরীর গনেশপুর শান্তিপাড়া এলাকায় রাবেয়া খাতুন নামের তিন সন্তানের জননীর মৃত্যুকে ঘিরে রহস্যের সৃষ্টি হয়েছে। ওই নারীর স্বামী ও পুলিশ এটিকে আত্নহত্যা বললেও নিহতের ভাইয়ের দাবি, তার বোনকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে।

রাবেয়ার স্বামীর নাম সিরাজুল ইসলাম। তিনি পেশায় বাসের সুপারভাইজার। ওই দম্পত্তির ঘরে দুই ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছে।

রাবেয়ার ছোট ভাই আযম আলী অভিযোগ করেন, সিরাজুল ইসলাম একজন মাকদসেবী। ফলে মাঝেমধ্যেই তার বোনকে মারধর করতো তার স্বামী। সোমবার, ১ এপ্রিল তাকে  বেধড়ক পেটানোর পর শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়েছে।

সিরাজুল ইসলাম দাবি করেন, সোমবার বিকেলে তিনি ঘুমাচ্ছিলেন। ঘুম থেকে জেগে তার স্ত্রীর ঝুলন্ত মরদেহ দেখতে পান। পরে দুই ছেলেকে নিয়ে রাবেয়ার মরদেহ নিচে নামান।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, দাম্পত্য কলহের জেরে সিরাজুলের সাথে রাবেয়ার প্রায়ই বাকবিতন্ডা হতো। এ কারণে সিরাজুল তার স্ত্রীকে মারধর করতেন। সোমবার সকালেও তাদের মধ্যে ঝগড়া হয়।

তবে রাবেয়া আত্মহত্যা করেছেন বলে মেট্রোপলিটন পুলিশের কোতোয়ালি থানার এসআই ছকিদুল ইসলামের ধারণা ।

এবি/রাতদিন

লাইক দিয়ে সাথে থাকুন