হায় বাবা! হায় ছেলে!!

রংপুরের পীরগঞ্জে মহাজুর রহমান (৩২) নামের এক ব্যক্তিকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। শুক্রবার, ৩১ জানুয়ারি সন্ধ্যায় উপজেলার মদনখালী তিন মাথার মোড়ে এ ঘটনা ঘটে। তার বাড়ি মদনখালী ইউনিয়নের মদনখালী আকন্দপাড়ায়।

জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জেরে নিহতের ছোটভাই নুর আলম (২৫) এ হত্যাকান্ড ঘটিয়েছে বলে পরিবার ও স্থানীয়রা জানিয়েছেন। এর আগে মহাজুরের বাবাকে খুন করেছিল নুর আলমের বাবা।

পরিবার ও স্থানীয়রা জানান, সন্ধার পর বাড়ি থেকে বাজারে যাওয়ার সময় ওৎ পেতে থাকা নুর আলম ধাওয়া করে মহাজুরকে । ধাওয়া খেয়ে সে একটি পরিত্যক্ত বাড়ির ভিতরে ঢুকলে সেখানেই ধারলো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যার পর পালিয়ে যায় নুর আলম। রাত ৮ সাড়ে আটটায় শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত নিহতের মরদেহ ঘটনাস্থলেই পড়েছিল।

প্রায় ১০ বছর আগে মহাজুরের বাবা মোস্তাফিজুরকেও কুপিয়ে হত্যা করেছিল মোস্তাফিজুরের ছোট ভাই মুনছুর আলী।

এ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে শুক্রবার রাতে মদনখালী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান শামছুল আলম রাতদিন.নিউজকে বলেন, ‘বাবার পর ছেলেকে হত্যার ঘটনাটি খুবই দুঃখজনক’।

ভেন্ডাবাড়ী পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ আমিনুল ইসলাম ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন।

পারিবারিক ও এলাকাবাসী সুত্রে জানা গেছে, জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জেরে মোস্তাফিজুর রহমানকে তার আপন ছোট ভাই মুনছুর আলী একইভাবে কুপিয়ে হত্যা করেছিল।

এ ঘটনার পর দুই ভাইয়ের মধ্যে বিরোধ আরও বেড়ে যায়। ওই হত্যাকান্ডের পর মামলা হয়। তাদের মধ্যে জমিজমা সংক্রান্ত মামলাও চলছিল। এই অবস্থাতেই মুনছুরের ছেলে হত্যা করলো এর আগে খুন হওয়া মোস্তাফিজুরের ছেলে মহাজুরকে।

এমএইচ/০১.০২.১৯

লাইক দিয়ে সাথে থাকুন