ওপার বাংলায় সরস্বতী পূজার অনুষ্ঠানে বিধায়ক খুন

ভারতের পশ্চিবঙ্গ রাজ্যের নদিয়া জেলার কৃষ্ণগঞ্জের বিধায়ককে গুলি করে হত্যা করেছে দুবৃত্তরা। তার নাম সত্যজিত বিশ্বাস। শনিবার, ৯ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশ সময় রাত নয়টার দিকে এ হত্যাকান্ড ঘটে। তিনি তৃণমূল কংগ্রেসের বিধায়ক ছিলেন।

সরস্বতী পূজার অনুষ্ঠানে ঢুকে তাকে গুলি করা হয় বলে দেশটির গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে।

স্থানীয় একটি সরস্বতী পূজার অনুষ্ঠান মঞ্চ থেকে নামার সময় ভিড়ের মধ্যে তাকে গুলি করে পালিয়ে যায় দুবৃত্তরা। খুব কাছ থেকে গুলি করা হয় তাকে। ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিত্সকরা ওই বিধায়ককে মৃত ঘোষণা করেন।

তৃণমূল কংগ্রেসের জেলা সভাপতি গৌরীশঙ্কর দত্ত বলেন, ‘আমি, সত্যজিত এবং মন্ত্রী রত্না ঘোষ ফুলবাড়ি এলাকার একটি সরস্বতী পুজোর অনুষ্ঠানে গিয়েছিলাম। মঞ্চ থেকে নামার সময় সত্যজিতকে গুলি করা হয়।’

প্রাথমিকভাবে পুলিশের ধারণা, দীর্ঘদিন ধরে পরিকল্পনা করে এই খুন করা হয়েছে। ঘটনাস্থলে থেকে একটি আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে। পুলিশ ও সিআইডি এ ঘটনায় তদন্তে নেমেছে।

এ ঘটনার জন্য ওই বিধায়কের দল দায়ি করেছে বিজেপিকে। নদিয়ার ভারপ্রাপ্ত তৃণমূল নেতা অনুব্রত মণ্ডল বলেন, ‘খুনের পিছনে বিজেপির ষড়যন্ত্র রয়েছে। তারাই এই খুন করিয়েছে।’

অপরদিকে  রাজ্য বিজেপির সাধারণ সম্পাদক সায়ন্তন বসু বলেন, ‘যে দিন থেকে অনুব্রত মণ্ডল নদিয়ার দায়িত্ব পেয়েছেন সে দিন থেকেই খুনোখুনির খেলা চলছে।’

বিজেপি সূত্রের বরাতে আনন্দবাজারের খবরে বলা হয়, ‘নিহত বিধায়ক কিছুদিনের মধ্যেই বিজেপিতে যোগ দিতে পারেন’ রাজনৈতির মহলে এমন গুঞ্জন ছিল বেশকিছু দিন ধরে।

২০১৫ সালের উপনির্বাচনে জিতে সত্যজিত বিশ্বাস বিধায়ক হন। পরে ২০১৬ সালে তিনি ওই আসন থেকে জয়লাভ করেছিলেন।

এইচএ/১০.০২.১৯

লাইক দিয়ে সাথে থাকুন