খাদ্যমন্ত্রীর চিকিৎসক জামাতার মৃত্যু ঘিরে রহস্য

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) ওরাল অ্যান্ড ম্যাক্সিলোফেসিয়াল বিভাগের সহকারী অধ্যাপক রাজন কর্মকার মারা গেছেন।

মুমূর্ষু অবস্থায় তাকে শনিবার, ১৬ মার্চ দিবাগত রাত ৪টার দিকে স্কয়ার হাসপাতালে নেয়া হলে ডাক্তাররা তাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন।

তিনি খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদারের জামাতা। রাজনের মৃত্যু নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন তার পরিবারের সদস্যরা।

ডা. রাজনের মামা সুজন কর্মকার সাংবাদিকদের বলেন, তার ভাগ্নের স্বাভাবিক মৃত্যু হয়নি। এজন্য সুষ্ঠু তদন্ত দাবি করছি।

পরিবারের এমন দাবির পরিপ্রেক্ষিতে রোববার, ১৭ মার্চ সন্ধ্যায় থানায় অপমৃত্যু মামলা দায়েরসহ ময়নাতদন্তের ব্যবস্থা করা হয়।

এর আগে ডা. রাজনের সহকর্মীদের কয়েকজন সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগ করে বলেন, রাজনের শ্বশুরবাড়ির লোকজন ময়নাতদন্ত করতে চান না।

ডা. রাজন খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদারের বড় মেয়ে কৃষ্ণা রানী মজুমদারের স্বামী। কৃষ্ণা রানী বিএসএমএমইউ’র জেনারেল সার্জারি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক।

রাজনের পরিবার ও সহকর্মীরা সংবাদমাধ্যমকে জানান, তিন বছর আগে পারিবারিকভাবে খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদারের মেয়ে কৃষ্ণা রানী মজুমদারের সঙ্গে রাজনের বিয়ে হয়। তারা ফার্মগেটের ইন্দিরা রোডের একটি ফ্ল্যাটে থাকতেন।

রাজনের সহকর্মী বিএসএমএমইউ’র নিউরোলোজি বিভাগের চিকিৎসক শাহ নেওয়াজ বারী বলেন, ‘এর আগেও রাজনের সঙ্গে কয়েকটি ঘটনা ঘটেছিল। এ কারণে আমাদের সন্দেহ তৈরি হয়েছে। তাই এ ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত দাবি করছি।’

এ বিষয়ে শেরেবাংলানগর থানার পরিদর্শক আবুল কালাম আজাদ বলেন, চিকিৎসক রাজন কর্মকারের মৃত্যু নিয়ে তার পরিবার বলছে, ‘অস্বাভাবিক’ ঘটনা ঘটতে পারে। এ কারণে সন্দেহমূলকভাবে তারা একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। এর ভিত্তিতে রাজনের লাশের ময়নাতদন্ত হচ্ছে।

এবি/রাতদিন

লাইক দিয়ে সাথে থাকুন