বেরোবিতে মারধরের শিকার দুই সাংবাদিক

বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে (বেরোবি) দুই সাংবাদিককে মারধরের অভিযোগ পাওয়া গেছে।
মঙ্গলবার, ২৯ জানুয়ারি এ ঘটনা ঘটে।

তারা হলেন দৈনিক সংবাদের প্রতিনিধি ও বেরোবি সাংবাদিক সমিতির কোষাধ্যক্ষ আল আমীন হোসেন এবং বাংলাদেশ প্রতিদিনের বেরোবি প্রতিনিধি ও সাংবাদিক সমিতির যুগ্ম সম্পাদক সৌম্য সরকার।

মারধরের শিকার সাংবাদিকরা অভিযোগ করেন, গত বছরের সেপ্টেম্বরে শহীদ মুখতার এলাহী হলে তাদের জন্য দুটি আসন বরাদ্দ দেয় প্রশাসন। তবে আসন দুটি ফাঁকা করে দিতে পারেনি প্রশাসন।

তারা জানান, বিষয়টি নিয়ে মঙ্গলবার ওই দুই সাংবাদিক বেরোবি সাংবাদিক সমিতির সভাপতি সাইফুল ইসলামকে সাথে নিয়ে বেরোবি শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি তুষার কিবরিয়া ও হল সভাপতি হাসান আলীর সাথে দেখা করেন। তুষার কিবরিয়া তাদেরকে দুটি আসন দেখিয়ে দিয়ে সেখানে উঠতে বলেন।
তার কথামত ওই আসনে উঠতে গেলে প্রথমে সৌম্য সরকারকে কোনো কথা ছাড়াই মারধর শুরু করেন মাহমুদুল হাসান জয়। এসময় তাকে সিঁড়ি থেকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেয়া হয়।

অপর সাংবাদিক আল আমীন এগিয়ে এলে তাকেও মারধর শুরু করেন জয়ের নেতৃত্বে আরও কয়েকজন। তাকে মারতে মারতে তিনতলা থেকে নিচ তলা পর্যন্ত নিয়ে আসা হয়। পাশাপাশি তার গলা চেপে ধরেন রাসেল নামের অপর একজন।

পরে তাদের চিৎকারে কয়েকজন এসে দুইজনকে উদ্ধার করে।

পরবর্তিতে ছাত্রলীগ নেতা তুষার কিবরিয়া ও হাসান আলী এসে সাংবাদিকদের নিয়ে বসান গেস্ট রুমে। সেখানে অভিযুক্ত জয় এ ঘটনার জন্য ভুল স্বীকার করে দুই সাংবাদিককে হলে উঠতে বলেন।

জানা গেছে, মাহমুদুল হাসান জয় বেরোবি শাখা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক।

এ ঘটনা সম্পর্কে জানতে মাহমুদুল হাসান জয়ের সাথে কথা বলা সম্ভব হয়নি।

তবে বোরোবি ছাত্রলীগ সভাপতি তুষার কিবরিয়া বলেন, ‘এটি একটি অনাকাঙ্খিত ঘটনা। বিষয়টি মীমাংসা করে দেওয়া হয়েছে’।

এ ঘটনায় নিন্দা জানিয়েছে বেরোবি সাংবাদিক সমিতি।

এসকে/২৯.০১.১৯

লাইক দিয়ে সাথে থাকুন