৩ বছর পর মুক্তি পেলেন নিরপরাধ জাহালম

তিন বছর পর মুক্তি পেলেন বিনাদোষে কারগারে থাকা পাটকল শ্রমিক জাহালম ওরফে জানে আলম। রবিবার, ০৩ ফেব্রæয়ারি রাত পৌনে ১ টার দিকে কাশিমপুর কারাগার পার্ট-২ থেকে তিনি মুক্তি পান।

গেল মাসের ২৮ জানুয়ারি দেশের শীর্ষস্থানীয় একটি দৈনিকে তাকে নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়। তাতে বলা হয়, সোনালী ব্যাংকের প্রায় সাড়ে ১৮ কোটি টাকা জালিয়াতির ঘটনায় ৩৩টি মামলায় জেল খাটছেন নিরপরাধ জাহালম।

ওই প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, আবু সালেকের (মূল অপরাধী) বিরুদ্ধে সোনালী ব্যাংকের সাড়ে ১৮ কোটি টাকা জালিয়াতির ৩৩টি মামলা হয়েছে। কিন্তু আবু সালেকের বদলে জেল খাটছেন পাটকল শ্রমিক জাহালম।

সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী অ্যাডভোকেট অমিত দাস গুপ্ত ওইদিনই প্রতিবেদনটি আদালতের নজরে আনেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে রোববার দুদকের মহাপরিচালক (আইন) মইনুল ইসলাম, দুদকের মামলার বাদী পরিচালক আব্দুল্লাহ আল জাহিদ, আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিবের একজন প্রতিনিধি ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগের সচিবের মনোনীত প্রতিনিধিকে আদালত তলব করে। রোববার সকালে ওই চারজন হাইকোর্টে হাজির হন। আর দুপুরে হাইকোর্ট বেঞ্চ জাহালমকে তাৎক্ষণিক মুক্তির আদেশ দেন।

কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগার-২ এর সিনিয়র জেল সুপার সুব্রত কুমার বালা জানিয়েছেন, আদালতের মুক্তির আদেশ রাত ১২টা ৫ মিনিটের দিকে কাশিমপুরে কারাগারে এসে পৌঁছায়। নিয়ামানুযায়ী তা যাচাই-বাছাই ও আনুষ্ঠানিকতা শেষে রাত ১২টা ৫০ মিনিটের দিকে জাহালম ওরফে জানে আলমকে মুক্তি দেওয়া হয়।

এ সম্পর্কিত আরও খবর...

এর আগে গত ২০১৬ সালের ৬ জুন জাহালমকে নরসিংদী থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরে ওই বছরের ২৭ মে তাঁকে কাশিমপুর কারাগারে স্থানান্তর করা হয়।

মুক্তি পাওয়ার পর জাহালম উপস্থিত সাংবাদিকদের বলেন, ‘এখন আমার অনেক ভালো লাগছে। অনেক খুশি লাগছে। কেননা আমি জীবনে চিন্তাও করতে পারি নাই যে, আমি জেল থিহা ( থেকে) বাইর হইতে পারমু (পারবো) , এত মামলা, মিথ্যা মামলা। অনেক কষ্টে দিন কাটছে। কষ্ট কইরা মানুষের কাপড়টাপড় ধুইয়া, ওয়ার্ডে সেবা কইরা, কাজ-কাম কইরা চলছি, এট্টু ভালো খাইছি।’

বিনা দোষে তিন বছর কারাগাভোগের জন্য ক্ষতিপূরণের দাবি জানিয়ে জাহালম ওরফে জানে আলম বলেন, ‘আমি অনেক ক্ষতিগ্রস্থ হইছি। আমি ক্ষতিপূরণ চাই রাষ্ট্রের কাছে, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে।’

এর আগে রোববার হাইকোর্টের বিচারপতি এফ আর এম নাজমুল আহসান ও বিচারপতি কে এম কামরুল কাদেরের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ নিরীহ পাটকল শ্রমিক জাহালমকে সব অভিযোগ থেকে অব্যাহতির আদেশ দেন এবং তাৎক্ষণিক মুক্তি দিতে উপ-কারামহাপরিদর্শককে (ডিআইজ প্রিজন্স) নির্দেশ দেন। সেইসাথে আদালত বলেন, বিনা দোষে জাহালমকে কারাগারে রাখা আরেকটি জজ মিয়ার নাটকের মতো ঘটনা।

এমআরডি-০৪.০২.২০১৯

সাথে থাকুন...