কুড়িগ্রামে সিজারে নবজাতকের নাড়িভুড়ি বের করেছে চিকিৎসক!

লালমনিরহাট সদর উপজেলার পঞ্চগ্রাম ইউনিয়নের রতিধর (চৌধুরী পাড়া) গ্রামের বলরাম চন্দ্র রায়ের স্ত্রী লক্ষ্মীরানীর (২৬) প্রসববেদনা ওঠে সোমবার রাতে। ফলে তাৎক্ষণিকভাবে তাকে নিয়ে যাওয়া হয় কুড়িগ্রাম শহরের বেসরকারি গ্রীন লাইফ হাসপাতালে।

ওই দম্পতি ও পরিবারের লোকজন অভিযোগ করেন,  হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পরপরই তাকে ভর্তি করা হয়। লক্ষীকে নিয়ে যাওয়া হয় অপারেশন থিয়েটারে। প্রায় পৌণে এক ঘন্টা পর তাদের জানানো হয়, ‘সিজার হয়েছে তবে নবজাতক মারা গেছে। সে প্রতিবন্ধী ছিল। তার মরদেহ কার্টুনে রাখা হয়েছে।’

লক্ষ্মীরানীর দেবর প্রণব চন্দ্র রায় বলেন, ‘বৌদিকে অপারেশনের জন্য নিয়ে যাওয়ার পর ৪০ মিনিটি পর নার্স আমাকে ওষুধ আনতে পাঠায়। ওষুধ এনে শুনি সিজার হয়েছে তবে বাচ্চা মারা গেছে। পরে রাত তিনটার দিকে ওই কার্টন খুলে বাচ্চার পেট কাটা অবস্থায় এবং নাড়িভুড়ি বাইরে বের হয়েছে। যদিও তার হাত-পা ঠিক ছিল।’

সোমবার, ১৮ মার্চ রাতের ওই ঘটনার পর কুড়িগ্রামের গ্রীন লাইফ হাসপাতাল ঘিরে তোলপাড় শুরু হয়েছে।  মঙ্গলবার এ ঘটনার খবর সংগ্রহ করতে গেলে সাংবাদিকদের বাধা দেয়া হয়। পরে সকালের দিকে রোগীর স্বজনদের হাসপাতাল থেকে ইজিবাইকে জোর করে বের করে দেয়া হয়।

ওই নবজাতকের স্বজনরা দাবি করেন, অপারেশনের সময় নবজাতককে মেরে ফেলা হয়েছে।

লক্ষ্মীরানীর দেবর প্রণব চন্দ্র রায় অভিযোগ করেন,  মঙ্গলবার সকালে আমাদের দ্রুত হাসপাতাল ত্যাগ করতে বলা হয়। সাংবাদিকদের সঙ্গেও কথা বলতে দেয়া হয়নি। বিষয়টি যাতে কাউকেই জানাতে না পারি সে জন্য প্রায় তিন কিলোমিটার পর্য়ন্ত পাহারা দেয়া হয় আমাদের ইজিবাইকটিতে।

লক্ষ্মীরানীর স্বামী বলরাম চন্দ্র রায় জানান, তাদের বিয়ের তিন বছর হয়েছে। এটা তাদের প্রথম সন্তান ছিল। আলট্রাসনোগ্রাম করার পরেও কেউ বলেনি বাচ্চা বা তার মায়ের কোনো সমস্যার কথা জানাননি আগে।

গ্রীন লাইফ হাসপাতালের মালিক ডা. অমিত কুমার রায় নিজেই সিজার করার বিষয়টি স্বীকার করে সাংবাদিকদের বলেন, ‘বাচ্চাটির পেটের নাড়িভুড়িতে সঠিক পরিপক্কতা না আসায় এ সমস্যা তৈরি হয়েছে।’

কুড়িগ্রামের  সিভিল সার্জন ডা. এসএম আমিনুল ইসলাম জানান, এ বিষয়ে কেউ কোনো অভিযোগ করেনি।

এইচএ/রাতদিন

লাইক দিয়ে সাথে থাকুন